Loading...
You are here:  Home  >  পারিবারিক সমস্যা  >  Current Article

বিদেশ থেকে স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার নিয়ম

By   /  26/12/2017  /  Comments Off on বিদেশ থেকে স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার নিয়ম

    Print       Email

প্রথমেই অত্যান্ত দুঃখের সাথে জানাচ্ছিজে বর্তমানে প্রবাস থেকে তালাক দেওয়ার কোন উপায় নাই বল্লেই চলে । কয়েক বছর পূর্বে যদিও প্রবাস থেকে অনেকে তালাক দিতে পারতো কিন্তু বিভিন্ন আইনি সমস্যা দেখা যাওয়া বর্তমানে প্রবাস থেকে তালাক দেওয়া বন্ধ আছে । প্রবাস থেকে হয়ত আপনি আপনার স্ত্রীকে তালাকের ঘোষণা দিতে পারবেন কিন্তু তালাকনাম নেওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই বাংলাদেশে থাকা কাজীর বোলিউমে স্বাক্ষর দিতে হবে । মোটকথা প্রবাসে থাকা অবস্থাই আপনি তালাকের পুরো পক্রিয়া সম্পাদন করতে পারবেন না ।

তালাকের প্রক্রিয়াগুলো আইনসম্মত উপায়ে করতে হলে আপনাকে অবশ্যই ১ দিনের জন্য হলেও দেশে থাকতে হবে

 

এখানে একটি কথা বলে রাখি, তালাক দাতাকে হয় তালাদ প্রাদনের দিন অথবা তালাক ঘোষণা দেওয়ার ৯০ দিন পরে যখন তালাকের মেয়াদ পূর্ণ হবে তখন তালাকনাম কাজীর থেকে উত্তোলনের জন্য তাকে অবশ্যই বাংলাদেশে থাকতে হবে

তবে সবথেকে উত্তম হয় তালাক ঘোষণা দেওয়ার সময় তালাক দাতার বাংলাদেশে থাকা

 

তো চলুন এখন আমি আপনাদের দেখাচ্ছি কিভাবে আইনসম্মত উপায়ে একজন প্রবাসী তার স্ত্রীকে তালাক দিতে পারবে

 

এই জন্য মোতিনকে অন্তত ১ দিনের জন্য হলেও বাংলাদেশে আসতে হবে

বাংলাদেশে এসে মোতিনকে কাজী অথবা একজন আইনজীবীর কাছে যেতে হবে, সেখানে গিয়ে মোতিনকে তার স্ত্রীকে তালাক প্রাদানের ঘোষণা দিতে হবে এবং যাবতীয় কার্যক্রমগুলো সম্পাদন করতে হবে।

একই সাথে উক্ত তালাকের ঘোষণার ৭ ধারা নোটিশ তার স্ত্রীর বর্তমান ঠিকানায় এবং স্ত্রী যে এলাকাতে স্থায়ীভাবে থাকে উক্ত এলাকার পরিষদের অফিসে পৃথক দুটি নোটিশ পাঠাতে হবে অর্থাৎ

এখানে সবথেকে গুরুত্তবপূর্ন যে কথাটি আপনাদের জন্য বলব তা হল  তালাকের ঘোষণা দেওয়ার দিন আপনারা অবশ্যই কাজীর কাছে থাকা তালাকের বোলিউমে আপনার স্বাক্ষর এবং টিপসই দিয়ে দিবেন এতে করে ৯০ দিন পরে যখন তালাক সম্পর্ন হবে তখন তালাকনামা কাজী আপনার মনোনিত প্রতিনিধিকে কোন প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই দিতে পারবেন  অর্থাৎ

এখানে আরেকটি কাজ করবেন তা হল তালাকের ৭ ধারা নোটিশের সাথে আপনি যদি ৫০০ টাকার ষ্ট্যাম্পে হলফনামা করেন তবে উক্ত হলফনামায় এটা উল্লেখ করবেন যে পরিষদ থেকে যখন উক্ত তালাকের মধ্যস্থতার জন্য স্বামী এবং স্ত্রী উভয় পক্ষকে আমন্ত্রন জানাবে তখন আপনার অবর্তমানে আপনার প্রতিনিধি হিসাবে কে উক্ত মধ্যস্ততায় উপস্থিত থাকবে

অর্থাৎএছাড়া উক্ত ৭ ধারা নোটিশের সাথে আপনি যে বিদেশ থেকে বাংলাদেশে এসেছে তার পরমানস্বরূপ পাসপোর্টের একটি ফটোকপিও দিয়ে দিতে পারেন

অর্থাৎএখানে আরেকটি কথা বলে রাখি একজন ব্যক্তি তালাক দেশের যেকোন স্থান থকেই করতে পারবেন  অর্থাৎ মনে করুন আপনারা বিবাহ করেছেন কুমিল্লাতে এবং আপনার স্ত্রী বর্তমানে থাকেও কুমিল্লাতে এক্ষেত্রে আপনি আপনার স্ত্রীকে তালাক ঢাকা থেকে দিতে পারবেন ।

তালাকের কাজগুলো ১ দিনের মধ্যেই সম্পাদন করে আপনি চাইলে আবার বিদেশে চলে যেতে পারেন

যাইহোক মোতিনের তালাকের ৭ ধারা নোটিশটি পাঠানোর দিন থেকে ১০০ দিন পূর্ন হবার পরে এবার মোতিনের একজন প্রতিনিধির মাধ্যমে স্ত্রীর স্থায়ী ঠিকানার পরিষদের অফিসে পাঠাতে হবে। সেখানে গিয়ে লিখিত আবেদন করে তালাকটি কার্যকর হয়েছে এই মর্মে একটি প্রত্যয়ন পত্র নিয়ে আসতে হবে।

এবার উক্ত প্রত্যয়ন পত্রটি নিয়ে মোতিনের প্রতিনিধিকে যেতে হবে যে কাজীর মাধ্যমে তালাকটি দেওয়া হয়েছে উক্ত কাজীর কাছে সেখানে গিয়ে কাজীর থেকে তালাক নামা নিয়ে আসতে হবে।

এভাবে সম্পাদন হয় প্রবাসে থাকা একজন ব্যক্তির তালাকের পুরো প্রক্রিয়া

বিদেশ থেকে স্ত্রীকে তালাক সম্পর্কে আরো প্রশ্ন থাকলে ফোন করুন – 01917-568940

ধন্যবাদ ।

    Print       Email

You might also like...

আদালতের মাধ্যমে তালাক দেওয়ার নিয়ম

Read More →