Loading...
You are here:  Home  >  আমদানী রপ্তানী  >  Current Article

বিদেশ থেকে পণ্য আমদানির প্রক্রিয়া

By   /  13/02/2018  /  Comments Off on বিদেশ থেকে পণ্য আমদানির প্রক্রিয়া

    Print       Email

মোতিন একজন তরুন উদ্যোক্তা । সে চাচ্ছে বিদেশ থেকে কিছু পন্য নিয়ে এসে বাংলাদেশের বাজারে বিক্রি করতে । কিন্তু সে জানেনা কিভাবে পন্য বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয় ।

তো চলুন এখন আমি আপনাদের দেখাবো বিদেশ থেকে পন্য আমদানির পুরো পক্রিয়া।

প্রথমেই বলে নেই যে, পৃথিবীর যেকোন দেশ থেকে পন্য আমদানির পদ্ধতি প্রায় একই রকম । তো ধরে নেই, মোতিন চায়না থেকে কিছু ইলেকট্রনিক পন্য আমদানি করতে চায় । পন্য আমদানির শুরুতে মোতিনকে ‘আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের অধিদপ্তর’ থেকে একটি আমদানি লাইসেন্স করতে হবে ।

 

আমদানি লাইসেন্স করতে আপনাদের যে সমস্ত কাগজপত্র লাগবেঃ-

  • আমদানি কারকের জাতীয় পরিচয় পত্র

  • আমদানি কারকের ৩ কপি ছবি

  • ট্রেড লাইসেন্স

  • ব্যাংক সলভেন্সী সার্টিফিকেট

  • ট্রেড এ্যাসোসিয়েশন সনদ

  • আমদানি কারকের TIN সার্টিফিকেট

 

 

আমদানি লাইসেন্স করার পদ্ধতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাইলে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে “আমদানি লাইসেন্স করার প্রক্রিয়া” নিয়ে একটি ভিডিও আছে সেই ভিডিওটি দেখতে পারেন ।

আমদানি লাইসেন্স করার পর এবার আপনি যে দেশ থেকে পন্য আনবেন সেই দেশের একজন উৎপাদনকারী/সরবরাহকারীর সাথে যোগাযোগ করতে হবে ।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশের অনেকেই alibaba.com থেকে পন্যের বিক্রেতাদের সাথে যোগাযোগ করে থাকে । এছাড়া আরো অনেক উপায়ে আপনি আপনার পছন্দের বিক্রেতার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।  তবে বর্তমানে সবাই ইন্টারনেট ব্যবহার করে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ক্রেতাবিক্রেতার যোগাযোগ এবং বাকি কাজগুলো করে থাকে ।

তো আপনি যখন আপনার পছন্দের সরবরাহকারীকে পেয়ে যাবেন তখন উক্ত সরবরাহকারীকে আপনার প্রয়োজন অনুসারে পন্যের ধরন, কালার, সংখ্যা ইত্যাদি বিষয়গুলোর তালিকা পাঠাবে্‌ একইসাথে পন্যের মূল্য ঠিক করে নিবেন ।

সরবরাহকারীর সাথে সবকিছু ঠিক হয়ে গেলে এবার সরবরাহকারী আপনাকে একটি PI- প্রফরমা ইনভয়েস  পাঠাবে । উক্ত প্রফরমা ইনভয়েজে পন্যের সমস্ত তথ্য থাকবে এবং উক্ত ইনভয়েস অবশ্যই বিক্রেতার প্রতিষ্ঠানের প্যাডে হতে হবে এবং বিক্রেতার স্বাক্ষর থাকবে । উক্ত প্রফরমা ইনভয়েস আপনাকে মেইল করলেও হবে ।

এবার আপনাকে উক্ত সরবরাহকারীর উদ্দেশ্যে LC ওপেন করতে হবে । LC আপনাকে ব্যাংক থেকে ওপেন করতে হবে । LC করতে হলে আপনাকে প্রফরমা ইনভয়েসের কপি, আমদানি লাইসেন্সের কপি, ট্রেড লাইসেন্সের কপি, পন্যের মূল্য ইত্যাদি নিয়ে একটি ব্যাংক যেতে হবে ।  সবকিছু ঠিক দেখলে LC ওপেন করে দিবে ।

এখানে বলে রাখি সরবরাহকারী যদি আপনার থেকে LC না দাবী করে তবে আপনাকে LC দেওয়া লাগবে না । আসলে LC হল সরবরাহকারী টাকা পাওয়ার নিশ্চয়তার কপি । অর্থাৎ মনে করুন সরবরাহকারীর পন্য হাতে পেয়ে যদি আপনি টাকা না দেন তবে সরবরাহকারী কি করবে ? আবার আপনিও পন্য না পেয়ে টাকা সরবরাহকারীকে দিবেন না । তাই ব্যাংক দুই পক্ষের মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকায় কাজ করে ।

যাইহোক, LCর কাগজ এবার আপনাকে সরবরাহকারীর নিকট পাঠাতে হবে। সরবরাহকারী LCর কাগজ পাওয়ার পরে আপনার পন্য উৎপাদন এবং সরবারহের ব্যবস্থা করবে । এবার সরবরাহকারী আপনার চাহিদা মত পন্যগুলো জাহাজে/বিমানে লোড করবে । সাধারনত সবাই জাহাজে করে পন্য আনে । জাহাজে পন্য লোড করার পরে জাহাজ কর্তৃপক্ষ  সরবরাহকারীকে Bill of Loading  প্রদান করবে ।

এবার সরবরাহকারী Bill of Loading এর একটি কপি আপানেক মেইল করবে । এতেকরে আপনি নিশ্চিত হলেন যে আপনার পন্য জাহাজে সত্যি উঠানো হয়েছে । উক্ত Bill of Loading এ পন্য কত তারিখে বাংলাদেশে আসতে পারে তার একটি আনুমানিক তারিখ থাকবে ।

 

এবার নির্ধারিত তারিখে আপনি পোর্টে গিয়ে C&F এজেন্টের সহযোগিতায় আপনার পন্য খালাস করিয়ে আনবেন । এখানে আপনি C&F এজেন্টের সহযোগিতা না নিতে চাইলে আপনি একাও কাজগুলো করতে পারেন । তবে কাস্টমসের কাজগুলো কঠিন বিধায় সবাই C&F এজেন্টের সহযোগিতা নিয়ে থাকে , তারা আপনার পক্ষ হয়ে কাস্টমসের সব কাজ করে দিবে ।

কাস্টমসের কাজ শেষ করার পর এবার আপনি আপনার পন্য বন্ধর থেকে বের করার অনুমতি পাবেন । এবার আপনি মনের আনন্দে পন্য আপনার হেফাজতে নিয়ে নিবেন।

তো আশাকরি এই ভিডিওর মাধ্যমে আমরা বুঝাতে সক্ষম হয়েছি কিভাবে বিদেশ থেকে পন্য কিনে দেশে নিয়ে আসতে হয় ।

এই বিষয় নিয়ে আরো কোন প্রশ্ন থাকলে আমাদের ফোন করুন – 01714-543232

 

সবাইকে ধন্যবাদ  ।

    Print       Email

You might also like...

বিদেশ থেকে ইমপোর্ট করার নিয়ম

Read More →